1. apbiman2015@gmail.com : Ashish Poddar Biman : Ashish Poddar Biman
  2. ganasonghoti@gmail.com : Daily Ganasonghoti : Daily Ganasonghoti
  3. jmitdomain@gmail.com : admin admin : admin admin
  4. sumonto108@gmail.com : Sumonto Sutradhar : Sumonto Sutradhar
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১০:৫১ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্তঃ
ফরিদপুরে শাহারিয়ার জামান (৫০) নামের এক ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেককে ধরে পুলিশে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা। ফরিদপুরে টিকটক করতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু ফরিদপুরে অবৈধ ভাবে পাচারকালে ২০ মেট্রিকটন সরকারি চাউল জব্দ, আটক ২  পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় নদীর কচুরিপানা অপসারণ, মৎস্য অবমুক্ত ও বৃক্ষ রোপন অভিযান অগ্নিকান্ডে পুড়ে কোটি টাকার ক্ষতি ফরিদপুরে পুলিশের উপর হামলা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সহ-সভাপতি গ্রেপ্তার দুইটি পৃথক অভিযানে ৪ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভাঙ্গায় প্রানী সম্পদ উন্নয়ন ও ডেইরী প্রকল্পের আওতায় খামারীদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ্য বিতরণ বাংলাদেশে এই প্রথম ফরিদপুরে পলিথিন বর্জ্য থেকে রিসাইকেলিংয়ের মাধ্যমে তেল উৎপাদন প্লান্টের উদ্বোধন পাট ও চামড়া শিল্প কে বিশ্ব বাজারে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কাজ করছে তারা – বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক
শিরোনাম :
ফরিদপুরে শাহারিয়ার জামান (৫০) নামের এক ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেককে ধরে পুলিশে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা। ফরিদপুরে টিকটক করতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু ফরিদপুরে অবৈধ ভাবে পাচারকালে ২০ মেট্রিকটন সরকারি চাউল জব্দ, আটক ২  পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় নদীর কচুরিপানা অপসারণ, মৎস্য অবমুক্ত ও বৃক্ষ রোপন অভিযান অগ্নিকান্ডে পুড়ে কোটি টাকার ক্ষতি ফরিদপুরে পুলিশের উপর হামলা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সহ-সভাপতি গ্রেপ্তার দুইটি পৃথক অভিযানে ৪ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভাঙ্গায় প্রানী সম্পদ উন্নয়ন ও ডেইরী প্রকল্পের আওতায় খামারীদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ্য বিতরণ বাংলাদেশে এই প্রথম ফরিদপুরে পলিথিন বর্জ্য থেকে রিসাইকেলিংয়ের মাধ্যমে তেল উৎপাদন প্লান্টের উদ্বোধন পাট ও চামড়া শিল্প কে বিশ্ব বাজারে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কাজ করছে তারা – বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক

ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে

  • Update Time : সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০
  • ১৩২৭ Time View

-ফরিদপুর চেম্বার সভাপতি মোঃ সিদ্দিকুর রহমান

ফরিদপুর চেম্বার এন্ড কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি-এর প্রেসিডেন্ট মোঃ সিদ্দিকুর রহমান সরকারের বর্তমান ২০২০-২০২১ সালের রাজস্ব বাজেট ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়ে কিছু কিছু বিষয়ে অভিবাদন ও কিছু কিছু বিষয়ে পুনঃমূল্যায়ন করা যায় কিনা বলেছেন। তিনি বলেন প্রতিদিনই আমাদের চরম আতঙ্কের মধ্যে বসবাস করতে হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর স্বাস্ত্য ঝুঁকি বাংলাদেশকে কোথায় নিয়ে যাবে তা অজানা। তারপর সরকার এই পরিস্থিতিতে বাজেট ঘোষণা করেছে এটা দুঃসহ কাজ। তারপরও বাজেটের অনেক বিষয়ের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা  জ্ঞাপন করছি।
ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে , প্রান্তিক পর্যায়ে কর্মসংস্থান নিশ্চিত করতে হবে। এইসব জনগোষ্ঠিকে ২০%-২৫% মহাজনী ঋণ বা এনজিও ঋণের খপ্পর থেকে উদ্ধার করতে হবে। তৃনমূল পর্যায়ের এইসব ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাকে টিকিয়ে রাখতে না পারলে গ্রামীন অথনীতি ভেঙে পড়বে। এই বছর ব্যবসার বছর নয়। বিশ্বের বড় বড় দেশগুলো ও এই সংকটে টিকে থাকার সংগ্রামে নেমেছে, মুনাফা অর্জনে নয়। ব্যাংকগুলো এই পর্যায়েও কাজ করতে হবে। চলমান দুর্যোগকালীন, যে সমস্ত কোম্পানী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদেরকে ঋণ প্রদানের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। কারণ চলতি বছর উৎপাদনের প্রতিটি সেক্টরে উৎপাদন মূল্য হ্রাস পাবে, বিক্রয়মূল্য কম থাকবে, মুনাফা হ্রাস পাবে ও বাজার স্থিতিশীল থাকবে। ব্যাংকার্স এ্যাসোসিয়েশন এর চেয়ারম্যানের ভাষ্য মতে, দেশে তারল্য সংকট নাই। মুদ্রা রিজার্ভে রেখে লাভ নাই। বিনিয়োগ করুন, উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ করে দিন, কর্মসংস্তানের সৃষ্টি করুন, মানুষ বাঁচান। এই বিপদের সময় অবশ্যই ব্যাংকার্স গ্রাহকের পাশে থাকতে হবে।কেননা, ব্যাংকের ক্ষতি হলে গ্রাহকের ক্ষতি আবার গ্রাহকের ক্ষতি হলে ব্যাংকের ক্ষতি। এছাড়া, নারী উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।
ফরিদপুর চেম্বার সভাপতি আরো বলেন, ভৌগলিক দিক খেকে ফরিদপুর একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে অবস্থিত। সম্প্রতি শিল্প খাতে ছাড় দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্যে গতি আনার চেষ্টা করা হয়েছে। অপ্রদর্শিত টাকা বিনিয়োগের সহজ সুযোগ করে দেওয়া একই সঙ্গে অর্থপাচার রোধে কঠোর আইনি পদক্ষেপে দেশের অর্থ দেশেই ব্যবহারে বাধ্য করা হয়েছে। যে পরিমাণ অর্থ আন্ডার ইনভয়েসিং ও ওভার ইনভয়েসিং করে পাচার হয়েছে এবং যে পরিমাণ প্রদর্শিত বিনিয়োগ ভুয়া প্রমাণিত হবে তার ওপর ৫০ শতাংশ হারে কর আরোপিত হবে।  এসব উদ্যোগে সুফল আসবে। বিনিয়োগ বাড়বে। এতে অর্থনীতি গতিশীল হবে। ফলে রাজস্ব আয়ও বাড়বে।
চলতি অর্থবছরে পদ্মাসেতু উদ্বোধন হবে। ফলে বৃহত্তর ফরিদপুরে নির্মাণশিল্পের সম্ভাবনার দুয়ার খুলে যাবে। এ শিল্পের সাথে এ অঞ্চলে প্রায় ৫০ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান  সম্পৃক্ত । বৃহত্তর ফরিদপুরে তথা বাংলাদেশের নির্মাণশিল্প টিকিয়ে রাখতে হলে নির্মাণখাতের উপকরণ সমূহের উপর যাবতীয় শুল্ক প্রত্যাহারের আবেদন জানাই। কেননা, অর্থনৈতিক মন্দার কারণে চলতি বছর নির্মাণশিল্পে অগ্রগতি কম হবে। সে সমস্যা দূর করতেই নির্মাণখাতের উপকরণ সমূহের উপর যাবতীয় শুল্ক প্রত্যাহার এখন সময়ের দাবী।
যাদের অতিরিক্ত সম্পদ রয়েছে এবারও তাদের নিয়মিত করের বাইরে অতিরিক্ত কর দিতে হবে। আসবাবপত্রের বিপণন পর্যায়ে ভ্যাট ৭.৫ শতাংশ, কার ও জিপ নিবন্ধনের ফি ও অন্যান্য সার্ভিসের ওপর ১৫ শতাংশ, মোবাইল ফোনের সিম বা রিম কার্ড ব্যবহারের সম্পূরক শুল্ক ১৫ শতাংশ, বিভিন্ন প্রসাধনসামগ্রীর ওপর সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ এবং সিরামিকের সিংক, বেসিন উৎপাদন পর্যায়ে ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করায় এসব খাতে খরচ বাড়বে। এবারও সিগারেট ও জর্দার দাম বাড়ানোয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা কমে আসবে এবং জনগণ এগুলো ব্যবহারে নিরুৎসাহিত হবে।
অর্থবছরের জন্য অপ্রদর্শিত জমি, বিল্ডিং, ফ্ল্যাট ও অ্যাপার্টমেন্টের প্রতি বর্গমিটারের ওপর নির্দিষ্ট হারে এবং নগদ অর্থ, ব্যাংকে গচ্ছিত অর্থ, সঞ্চয়পত্র, শেয়ার, বন্ড বা অন্য কোনো সিকিউরিটিজের ওপর ১০ শতাংশ কর প্রদান বিনিয়োগের সুযোগ দিলেন। এ ক্ষেত্রে  আয়কর রিটার্নে প্রদর্শন করলে আয়কর কর্তৃপক্ষসহ অন্য কোনো কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে প্রশ্ন তুলতে পারবে না। পুঁজিবাজারেও এ সুবিধা বহাল রেখেছেন তিনি।
বাজেট প্রস্তাবে শিল্পের কিছু খাতে বাড়তি সুবিধা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। স্তানীয় শিল্পের চলার পথ মসৃণ করতে আমদানি পর্যায়ে শিল্পের কাঁচামালের ওপর আগাম কর হ্রাস করে ৪ শতাংশের প্রস্তাব করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের রেয়াত গ্রহণের সময়সীমা বাড়িয়ে চার করমেয়াদ করা হয়েছে। পরিবহন সেবার ৮০ শতাংশ রেয়াতযোগ্য করা হয়েছে। ব্যবসায়ীদের ভ্যাট রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে।
বাজেটে সরকারের অগ্রাধিকারমূলক প্রকল্পে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ভারী প্রকৌশল শিল্প, রপ্তানি খাতের স্বার্থ সংরক্ষণ এবং দেশীয় শিল্পের বিকাশের জন্য অটোমোবাইল, রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার, এয়ার কন্ডিশনার শিল্পসহ কয়েকটি শিল্প খাতে বিদ্যমান মূসক ও সম্পূরক শুল্কের অব্যাহতি বহাল রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে। স্থানীয় পর্যায়ে মোবাইল টেলিফোন সেট উৎপাদনের ওপর মূসক অব্যাহতি এবং সংযোজন খাতে ৫ শতাংশ হারে মূসক রাখা হয়েছে। স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষার জন্য দেশে বিভিন্ন উপকরণেও রাজস্ব ছাড় দেওয়া হয়েছে। বাজেটের এটা ভালো একটা দিক।
করোনার কারণে আয়-রোজগার কমে যাওয়া সাধারণ মানুষকে কম দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য চাল, আটা, আলু, পেঁয়াজ, রসুন কম দামে দিতে উৎস আয়কর কর্তনের হার কমিয়ে ২ শতাংশে নির্ধারণের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী। হাঁস-মুরগির খাদ্য উৎপাদনের অগ্রিম আয়কর কমিয়ে ২ শতাংশ প্রস্তাব করা হয়েছে। রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা পূরণের চাপ নিয়ে অর্থমন্ত্রী সাধারণ মানুষকে ছাড় দিতে এনবিআরের জোরালো আপত্তি সত্ত্বেও করমুক্ত আয় সীমা বাড়ালেন, সর্বনিম্ন করহারের হার ও করপোরেট কর কমালেন।
বাজেটে ব্যাংক থেকে যে পরিমাণ ঋণ নেওয়ার উদ্যোগ রয়েছে, তাতে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ কমতে পারে। অন্যদিকে, কালো টাকা সাদা করার অনৈতিক সুযোগ দেওয়া হয়েছে। স্বাস্ত্য ও শিক্ষা খাতে আরও গুরুত্ব দেওয়া দরকার ছিল
প্রশ্ন উঠছে বাজেট বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সরকার যদি ব্যাংক থেকে বেশি ঋণ নেয় তাহলে বেসরকারি খাত বেশি ঋণ পাবে না। এক্ষেত্রে বাজেট খুব ফ্লেক্সিবল বলে অর্থমন্ত্রী উল্লেখ করেছেন।
সামাজিক নিরাপত্তার উপকারভোগীদের জাতীয় পরিচয়পত্রের ঠিকানা অনুযায়ী সাহায্য দেয়া হয়, কিন্ত‘ কর্মসূত্রে তিনি অন্য জায়গায় থাকতে পারেন। ফলে তিনি বঞ্চিত হচ্ছেন। এ প্রক্রিয়াটি সংশোধন করা দরকার।
নতুন উদ্যোক্তারা প্রথম দিকে মূলধনী সমস্যায় থাকেন। এ সমস্যার সমাধানের জন্য জার্মানির অনুসরণ করা যেতে পারে। সেখানে, বড় বড় কোম্পানিগুলো ছোট কোম্পানিকে সহায়তা করে। বড় কোম্পানিগুলো কখনো এককভাবে আবার কখনো কয়েকটি কোম্পানি মিলে সেটা করে থাকে।
বাংলাদেশেও এমন উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে ছোট কোম্পানিগুলোকে ক্যাপিটাল ভেঞ্চারের মত ঋণের ব্যবস্তা করা যেতে পারে। এছাড়া তাদের গ্যারান্টার হিসাবে বাংলাদেশ ব্যাংকও এগিয়ে আসা উচিৎ।

Please Share This Post...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
The Daily Ganasonghoti © 2020
support By : Ganasonghati