1. apbiman2015@gmail.com : Ashish Poddar Biman : Ashish Poddar Biman
  2. ganasonghoti@gmail.com : Daily Ganasonghoti : Daily Ganasonghoti
  3. jmitdomain@gmail.com : admin admin : admin admin
  4. sumonto108@gmail.com : Sumonto Sutradhar : Sumonto Sutradhar
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১০:২৬ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্তঃ
ফরিদপুরে শাহারিয়ার জামান (৫০) নামের এক ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেককে ধরে পুলিশে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা। ফরিদপুরে টিকটক করতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু ফরিদপুরে অবৈধ ভাবে পাচারকালে ২০ মেট্রিকটন সরকারি চাউল জব্দ, আটক ২  পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় নদীর কচুরিপানা অপসারণ, মৎস্য অবমুক্ত ও বৃক্ষ রোপন অভিযান অগ্নিকান্ডে পুড়ে কোটি টাকার ক্ষতি ফরিদপুরে পুলিশের উপর হামলা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সহ-সভাপতি গ্রেপ্তার দুইটি পৃথক অভিযানে ৪ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভাঙ্গায় প্রানী সম্পদ উন্নয়ন ও ডেইরী প্রকল্পের আওতায় খামারীদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ্য বিতরণ বাংলাদেশে এই প্রথম ফরিদপুরে পলিথিন বর্জ্য থেকে রিসাইকেলিংয়ের মাধ্যমে তেল উৎপাদন প্লান্টের উদ্বোধন পাট ও চামড়া শিল্প কে বিশ্ব বাজারে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কাজ করছে তারা – বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক
শিরোনাম :
ফরিদপুরে শাহারিয়ার জামান (৫০) নামের এক ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেককে ধরে পুলিশে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা। ফরিদপুরে টিকটক করতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু ফরিদপুরে অবৈধ ভাবে পাচারকালে ২০ মেট্রিকটন সরকারি চাউল জব্দ, আটক ২  পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় নদীর কচুরিপানা অপসারণ, মৎস্য অবমুক্ত ও বৃক্ষ রোপন অভিযান অগ্নিকান্ডে পুড়ে কোটি টাকার ক্ষতি ফরিদপুরে পুলিশের উপর হামলা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সহ-সভাপতি গ্রেপ্তার দুইটি পৃথক অভিযানে ৪ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভাঙ্গায় প্রানী সম্পদ উন্নয়ন ও ডেইরী প্রকল্পের আওতায় খামারীদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ্য বিতরণ বাংলাদেশে এই প্রথম ফরিদপুরে পলিথিন বর্জ্য থেকে রিসাইকেলিংয়ের মাধ্যমে তেল উৎপাদন প্লান্টের উদ্বোধন পাট ও চামড়া শিল্প কে বিশ্ব বাজারে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কাজ করছে তারা – বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক

সৈয়দ আবদুর রব: নিঃস্বার্থ ও নিবেদিতপ্রাণ সমাজসেবক

  • Update Time : বুধবার, ২৪ জুন, ২০২০
  • ১৩৮৬ Time View

অবিভক্ত বাংলার মহাপুরুষদের মধ্যে সমাজে সত্যিকারের নিঃস্বার্থ ও নিবেদিতপ্রাণ বিরল সমাজসেবক তথা সমাজসংস্কারকদের একজন ছিলেন সৈয়দ আবদুর বর (১৯০৩-১৯৬৯)। সমাজের দুঃস্থ-অসহায়ের দুঃখ, মানবতার অবমাননা তাকে ব্যথিত করেছিল, যা তার ভবিষ্যতের জীবনদর্শন ও কর্মপ্রচেষ্টা প্রতিষ্ঠা করতেও উৎসাহিত করেছিল। এর অঙ্কুর হিসেবে তিনি ১৯২৮ সালে ফরিদপুর শহরে পৈত্রিক বাসভবনে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ঐতিহাসিক খাদেমুল এনসান মিশন। মানব সেবায় এই মিশনের সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হতো বাংলা, বিহার, ঊড়িষ্যা ও আসামের বিভিন্ন স্থানে বন্যা, সাইক্লোন, ভূমিকম্প, মহামারী ইত্যাদি দুর্যোগে।
কিন্তু সমাজের বৃহত্তর সমস্যাসমূহ বিশেষত অশিক্ষা, কুসংস্কার, দুর্নীতি, তদুপরি সর্ববিধ দৈন্যতা ক্রমশ সৈয়দ আবদুর রবকে ব্যথিত করেছিল। ফলে মিশন তার কার্যক্রম শুধুমাত্র আর্তের সেবাতেই আবদ্ধ রাখে নাই, দৃষ্টি সম্প্রসারণ করেছিল সামাজিক সংষ্কার-সাধন ও পুনর্গঠনে; জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য। এরই ধারাবাহিকতায় খাদেমুল এনসান মিশন সেসময়ে বিভিন্নস্থানে গড়ে তোলে বিদ্যালয়, নৈশ্য বিদ্যালয়, পাঠাগার, এতিমখানা, কবরস্থান, ধর্মগোলা, সালিশী বোর্ড প্রভৃতি।
আর এভাবেই বাংলা, বিহার, ঊড়িষ্যা ও আসামের বিভিন্নজায়গায় ৩২৮টি শাখা অফিস, ২১৩টি সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র এবং ১১৫টি শিক্ষা ও সমাজকল্যাণ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সমিতি কার্যক্রম পরিচালনা করে। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে, প্রয়োজনীয় অর্থ, নিঃস্বার্থ কর্মীর অভাব, কিছু সমাজনেতার অসহযোগিতা এবং রক্ষণশীলদের বিরোধিতা সমিতির কার্যক্রমকে বিঘ্নিত করেছে পদে পদে। তথাপি থেমে থাকেনি মিশনের কার্যক্রম, এর গতিশীলতা।
সৈয়দ আবদুর রব ছিলেন এক অনন্য সাধারণ কর্মী, চিন্তাবিদ ও সাহিত্যিক। মিশনের উদ্দেশ্য ও কর্মপরিধির বিস্তৃতি ও ব্যাপকতার সাথে সাথে তিনি এর মুখপত্র রূপে ১৯২৮ সালে তাঁরই সম্পাদনায় প্রকাশিত করতে শুরু করেন তৎকালীন বিখ্যাত পত্রিকা মোয়াজ্জিন, প্রথমে ত্রৈমাসিক এবং পরবর্তীতে মাসিক হিসেবে। তার সম্পাদনায় ১৯৩৬ সালের জানুয়ারি মাস হতে প্রকাশিত হতে থাকে অপর আরেকটি পত্রিকা The Servant of Humanity ।
তৎকালীন অবিভক্ত বাংলার বিশিষ্ট নেতৃবর্গ, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবীদের অকুণ্ঠ সমর্থন, শ্রদ্ধা, আন্তরিকতা ও ভালোবাসা অর্জন করেছিল সৈয়দ আবদুর রব, তার প্রতিষ্ঠিত ঐতিহাসিক খাদেমুল এনসান মিশন এবং তার সম্পাদিত পত্রিকা দু’টি। যার প্রমান মেলে পত্রিকা দুটির সূচিপত্রে। বিভিন্ন সময়ে যারা লেখনির মাধ্যমে মুখপত্রদ্বয়কে সমৃদ্ধ করেছেন, তাদের দীর্ঘ তালিকায় রয়েছেন মহাত্মা গান্ধী, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, সরোজিনী নাইডু, মওলানা আবুল কালাম আজাদ, আচার্য প্রফুল্ল রায়, এ.কে. ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, বেগম সামসুন্নাহার, বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়, এয়াকুব আলী চৌধুরী, ড. মুহম্মদ লুৎফর রহমান, বেগম রোকেয়া, সুফিয়া কামাল, কবি গোলাম মোস্তফা, প্রাণতোষ চট্টোপাধ্যায়, বন্দেআলী মিয়া, ড. এনামুল হক, হুমায়ূন করীর চৌধুরী, অধ্যাপক আবুল ফজল, কাজী মোতাহার হোসেন, আহসান হাবীব, ফাল্গুনী মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।
সৈয়দ আবদুর রবের জীবনদর্শন ছিল মানবতার আদর্শে অনুপ্রাণিত এবং সর্বপ্রকার সাম্প্রদায়িকতার উর্ধ্বে। তার খাদেমুল এনসান মিশন ছিল জাতি-ধর্ম-বর্ণের উর্ধ্বে সকলের সেবায় নিয়োজিত। ভারতবর্ষের জনগণ, নেতৃবৃন্দ ও বুদ্ধিজীবী সমাজে তিনি ছিলেন অত্যন্ত প্রিয়, শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিত্ব।
তৎকালীন বৃটিশ ভারতের বড়লাট ১৯৩৭ সালে তাকে তার অসাধারণ কর্মকাণ্ডের অবদানস্বরূপ স্বর্ণপদকে ভূষিত করেছিলেন।
তিনি ছিলেন ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে বিপ্লবী চিন্তাধারার অধিকারী। গতানুগতিকতার অবসান ঘটিয়ে করতে চেয়েছিলেন আমুল পরিবর্তন। কিন্তু তার সেই চিন্তাধারা মনে প্রাণে উপলব্ধি ও গ্রহণ করার মতো উপযুক্ত মানব ও পরিবেশ উভয়েরই অভাব ছিল। তারই ইঙ্গিত পাওয়া যায় মোয়াজ্জিন একাদশ বর্ষ, দ্বিতীয় সংখ্যায় (জ্যৈষ্ঠ ১৩৪৬) সৈয়দ আবদুর রব লিখিত “মনুষ্যত্বের ব্যর্থতা” শীর্ষক প্রবন্ধে। তিনি লিখেছেন, “ধর্মের সঙ্গে মানুষের ধৃষ্টতা, ন্যায়ের সঙ্গে মানুষের নিমকহারামি এবং সত্যের সঙ্গে মানুষের শয়তানি ক্রমশই বৃদ্ধি পাইতেছে। … মানুষ-সমাজে ধর্মের নামে অধর্মের প্রবল স্রোতেই প্রবাহিত হইতেছে। ধর্ম জীবনে আজ প্রবঞ্চনাই উচ্চস্থান লাভ করিয়াছে। মানুষ স্ব স্ব ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ব ও বৈশিষ্ট্যর ব্যর্থ বড়াই লইয়াই বিরোধে প্রমত্ত।…মানুষের বেদনায় অশ্রুপাত যেন সেখানে হারাম। মানুষ ও মনুষ্যত্বের সঙ্গে সেখানে দারুণ প্রবঞ্চনা…তাই বঞ্চিত মনুষ্যত্বের বিক্ষুব্ধ ক্রন্দনে স্রষ্টা ও সৃষ্টি আজ অতিষ্ঠ। পুরাতন ‘একঘেয়ে’ পথ চলিতে চলিতে মানুষ নতুন ধারণা, উদার চিন্তা, উন্নত রুচি, মুক্তবুদ্ধি ও নতুন পথ চলার আনন্দের সন্ধান এ মহান মানব জীবনে লাভ করিতে পারিল না; এমনই দুর্ভাগ্য তাহার।”
তার বলিষ্ঠ, গতিশীল নেতৃত্ব ও বিস্ময়কর কর্মপ্রচেষ্টায় মিশনের সাফল্য যখন ইতিহাসে পরিণত হবার প্রক্রিয়ায় ঠিক সেসময়েই শুরু হয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামা। যুদ্ধ থামতেই শুরু হলো সাম্প্রদায়িকতার দাঙ্গা, দেশ ভাঙ্গার জোর আন্দোলন। এই দাঙ্গায় সৈয়দ আবদুর রব গুরুতর আহত হয়েছিলেন, মিশন অফিসও লুন্ঠিত হয়েছিল। প্রাণ নিয়ে তিনি ফিরে এসেছিলেন পিতৃলয় ফরিদপুর শহরের পূর্বখাবাসপুরে।
অনেক সাধনা আর শ্রমে গড়া প্রতিষ্ঠান যেন এক কুটিল, নিকৃষ্ট চক্রান্তে বিনষ্ট হয়ে গেল মুহুর্তেই! জীবনদশার শেষ দুই দশক সমাজের কাছ থেকে প্রাপ্য সমাদর ও স্বীকৃতি কিছুই পান নাই। তবে, অর্জন যেটুকু তার মধ্যে রয়েছে ২০০২ সালে বাংলা একাডেমী প্রকাশিত জীবনী গ্রন্থমালায় আবুল আহসান চৌধুরী লিখিত সৈয়দ আবদুর রব জীবনী গ্রন্থমালা।
এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ প্রকাশিত বাংলাপিডিয়ার বাংলা এবং ইংরেজী উভয় সংস্করণেই তার সংক্ষিপ্ত জীবনী অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ইসস্টিটিউট তার জীবন ও কর্মকাণ্ডকে পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত করেছে।
তারই প্রতিষ্ঠিত ফরিদপুর গোরস্থানে চিরনিদ্রার জন্য নির্ধারিত স্থানটি উপহার পেয়েছেন। ফরিদপুর পৌরসভা তার বাড়ির সামনের সড়কটির নামকরণ করেছে তারই নামানুসারে।
আজ ১৭ জুন, ২০২০, এই মহাসেবক, মহৎমানুষটির ১১৭তম জন্মবার্ষিকী। এই লেখা তাকে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা জানাতে। এ সমাজ একদিন নিশ্চয়ই সৈয়দ আবদুর রব এর আদর্শবাদ, মুক্তবুদ্ধি, আর্তসেবা ও কল্যাণকর কর্ম প্রেরণার সঠিক উপলব্ধিতে সমর্থ হবে।

Please Share This Post...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
The Daily Ganasonghoti © 2020
support By : Ganasonghati